চিংড়ির সাথে বাঁধাকপি ভাজি রেসিপি

in hive-129948 •  2 months ago 
হ্যালো বন্ধুরা, সবাই কেমন আছেন? আশা করি সবাই সুস্থ, স্বাভাবিক আছেন। সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়ে আজকের ব্লগটি শুরু করছি।

আজকে আপনাদের সাথে একটা রেসিপি শেয়ার করে নেবো। আজকে আমি বাঁধাকপি ভাজা করেছি। এই বাঁধাকপিকে পাতাকপি বলাও হয়ে থাকে, তবে সাধারণত বেশিরভাগই সবাই বাঁধাকপি বলে থাকে। বাঁধাকপি খুবই সুস্বাদু একটা বৃহৎ পাতাযুক্ত সবজি। এটি মূলত ভাজা করেই খাওয়া হয়ে থাকে আর যেকোনো ছোট মাছ বা চিংড়ি দিয়েই একমাত্র এর স্বাদ নেওয়া যায়। তবে সবথেকে বেশি মিল খায় চিংড়ির সাথে। বাঁধাকপি কিন্তু কাঁচা হিসেবেও অনেক ভাবে খাওয়া যায় আবার আমরা যেভাবে খেয়ে থাকি রান্না করে সেভাবেও খাওয়া যায়। বাঁধাকপির কচি কচি পাতাগুলোও দারুন লাগে ভাজা করে খেতে। মূলত বাঁধাকপির পুরোটাই থাকে পাতা দিয়ে মুড়ানো এইজন্য বাঁধা নামটা যুক্ত হয়েছে। আর এই বাঁধাকপি মূলত শীতকালের সিজনে বেশি হয়ে থাকে, আর এখন বুঝতেই পারছেন এটা অসময়ের তাই অসময়েও খাওয়ার মজা আছে। তবে শীতকালের জনপ্রিয় এইগুলো। বাঁধাকপি বিভিন্ন ভ্যারাইটির হয়ে থাকে, আমাদের এখানে অনেকেই চাষ করে থাকে যেমন বেগুনি কালারের হয়ে থাকে আবার আরো বিভিন্ন কালারের হয়ে থাকে। আর এইসব ভ্যারাইটির কালারের বাঁধাকপিগুলো খেতেও দারুন লাগে আর বাজারে চাহিদাও বেশি। যাইহোক এখন এই বাঁধাকপি ভাজা রেসিপিটির মূল বিষয়ের দিকে চলে যাবো।


☫প্রয়োজনীয় উপকরণসমূহ:☫

❣উপকরণ
পরিমাণ❣
চিংড়ি
২০০ গ্রাম
বাঁধাকপি
১ টি
আলু
২ টি
পেঁয়াজ
২ টি
কাঁচা লঙ্কা
৮ টি
জিরা
পরিমাণমতো
সরিষার তেল
৪ চামচ
লবন
৩ চামচ
হলুদ
৩ চামচ


চিংড়ি, বাঁধাকপি, আলু, পেঁয়াজ


কাঁচা লঙ্কা, সরিষার তেল, লবন, হলুদ


❦এখন ভাজি রেসিপিটা যেভাবে তৈরি করলাম---


✠প্রস্তুত প্রণালী:✠


➤চিংড়িগুলোকে মাথার দিক থেকে সামান্য অংশ কেটে ফেলে দিয়েছিলাম এবং পরে জল দিয়ে ভালোভাবে কয়েকবার ধুয়ে নিয়েছিলাম। এরপর বাঁধাকপিটিকে কেটে কুচি কুচি করে নিয়েছিলাম আর পরে জল দিয়ে ধুয়ে নিয়েছিলাম।

➤আলুগুলোর খোসা ছালিয়ে নিয়ে কেটে ছোট ছোট করে নিয়েছিলাম এবং জল দিয়ে ধুয়ে নিয়েছিলাম। পেঁয়াজ দুটিকে কেটে কুচি করে নিয়েছিলাম খোসা ছাড়িয়ে নেওয়ার পরে । এরপর কাঁচা লঙ্কাগুলো সব কেটে নেওয়ার পরে ধুয়ে নিয়েছিলাম।

➤কেটে রাখা চিংড়িগুলোতে ১ চামচ করে লবন আর হলুদ দিয়ে দিয়েছিলাম। এরপর গায়ে ভালো করে ঝাঁকিয়ে মাখিয়ে নিয়েছিলাম।

➤চিংড়িগুলোকে ভালো করে ভেজে তুলে নিয়েছিলাম। এরপর কেটে রাখা আলুর ছোট ছোট পিচগুলোকে লাল মতো করে ভেজে তুলে নিয়েছিলাম।

➤পেঁয়াজ কুচিগুলো জল দিয়ে ধুয়ে নেওয়ার পরে ভালো করে তেলে ভেজে তুলে নিয়েছিলাম। এরপর একটি প্যানে তেল দিয়ে পরিমাণমতো জিরা দিয়ে দিয়েছিলাম।

➤জিরা একটু ভাজা হওয়ার পরে তাতে কেটে রাখা বাঁধাকপি দিয়ে দিয়েছিলাম। এরপর তাতে ভেজে রাখা চিংড়ি সব দিয়ে দিয়েছিলাম।

➤চিংড়ি দেওয়ার পরে তাতে কেটে রাখা লঙ্কা দিয়ে দিয়েছিলাম এবং পরে তাতে স্বাদ মতো লবন আর হলুদ দিয়ে দিয়েছিলাম।

➤সব উপাদানগুলো বাঁধাকপির সাথে মিক্স করে নিয়েছিলাম। এরপর বাঁধাকপি সিদ্ধ হয়ে আসার জন্য কিছুক্ষন ঢেকে রেখেছিলাম।

➤বাঁধাকপি সিদ্ধ হয়ে আসলে ঢাকনাটা তুলে দিয়েছিলাম এবং আরো কিছুক্ষন জ্বাল দেওয়ার পরে ভেজে রাখা আলুর পিচগুলো দিয়ে দিয়েছিলাম।

➤আলুর পিচগুলো নেড়েচেড়ে বাঁধাকপির সাথে মিশিয়ে দিয়েছিলাম এবং তাতে ভাজা পেঁয়াজ এর অংশ দিয়ে দিয়েছিলাম । এরপর বাঁধাকপির থেকে যে জলটা বেরিয়েছিল সেটা আরো কিছুক্ষন জ্বাল দিয়ে শুকনো শুকনো করে নিয়েছিলাম এবং তাতে খুবই সামান্য পরিমান তেল দিয়ে পুরোপুরি ভাজা হয়ে আসার জন্য দেরি করেছিলাম।

➤বাঁধাকপি পুরোপুরি ভাজা হয়ে গেলে আমি চুলা অফ করে দিয়েছিলাম। এরপর আমি খাওয়ার জন্য কিছু বাঁধাকপি একটি প্লেটে তুলে নিয়েছিলাম। চিংড়ি দিয়ে বাঁধাকপি ভাজাটা খেতে দারুন স্বাদ হয়েছিল।

রেসিপি বাই, @winkles

শুভেচ্ছান্তে, @winkles


Support @heroism Initiative by Delegating your Steem Power

250 SP500 SP1000 SP2000 SP5000 SP

Heroism_3rd.png

Authors get paid when people like you upvote their post.
If you enjoyed what you read here, create your account today and start earning FREE STEEM!
Sort Order:  

যেকোনো ছোট মাছ বা চিংড়ি দিয়েই একমাত্র এর স্বাদ নেওয়া যায়।

দাদা কয়েকদিন থেকেই আপনার পোস্টগুলো মিস করছিলাম। আপনার পোস্টগুলো আমার অনেক ভালো লাগে। হয়তো আপনার ব্যস্ততার কারণে বা অন্য কোনো কারণে আপনি আমাদের মধ্যে পোস্ট উপস্থাপন করতে পারেননি। তবে যাই হোক আপনি আপনার ব্যস্ততা কাটিয়ে আবারও মজার একটি রেসিপি পোস্ট নিয়ে হাজির হয়েছেন দেখে অনেক ভালো লাগলো। বাঁধাকপি খেতে আমার খুবই ভালো লাগে। আর চিংড়ি মাছ দিয়ে বাঁধাকপি রান্না করলে একেবারেই জমে যায়। এমন কিছু সবজি আছে যেগুলোর সাথে চিংড়ি মাছ খেতে দারুন লাগে। বাঁধাকপি ও চিংড়ি মাছের সাথে আলু সুন্দর করে ভিজে রান্না করেছেন দেখেই খেতে ইচ্ছে করছে। খুবই লোভনীয় রেসিপি তৈরি করেছেন দাদা। রন্ধন প্রণালীর নিপুনতা আমাদের সকলের মাঝে উপস্থাপন করেছেন এজন্য আপনাকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি দাদা। শুভকামনা রইল।

হ্যা, ব্যস্ত ছিলাম একটু দুইদিন যাবৎ। মাঝে মাঝে সমস্যা বেধে যায় এমন যে আর সময় করে উঠতে পারছি না। বাঁধাকপি একটা খুবই ভালো সবজি যেকোনোভাবেই ভালো লাগে আলু দিয়ে করলে, তবে ভাজাটা আমার মোস্ট ফেভারিট।

দাদা বুঝতে পারছিলাম আপনি অনেক ব্যস্ততার মধ্যে আছেন, যার কারণে পোস্ট করতে একটু সমস্যা হচ্ছিল, যাক অবশেষে আপনার পোস্ট পেলাম। আজকে আপনি খুবই মজাদার রেসিপি শেয়ার করেছেন আমাদের সাথে। আসলে বাঁধাকপি আমারও খুবই প্রিয়। এই বাঁধাকপি ভাজি খেতে খুবই মজাদার লাগে। বাঁধাকপির ভাজি গরম ভাতের সাথে খেতে আমার বেশি ভাল লাগে। আসলে বাঁধাকপি পুরোটাই থাকে পাতার যুক্ত, আর এই কপিটি আমাদের বাড়ির পাশে চাষ করে।যার কারণে বাঁধাকপি দিয়ে আমি অনেক রকমের রেসিপি তৈরি করতে পেরেছিলাম। যাই হোক আজকে আপনার চিংড়ি মাছ দিয়ে বাঁধাকপি ভাজি রেসিপি দেখেই খেতে ইচ্ছা করছে। আপনি খুবই মজাদার রেসিপি তৈরি করলেন এবং আমাদের সাথে শেয়ার করলেন। আপনাদের রেসিপি পরিবেশন আমার অনেক ভালো লেগেছে। আর বাঁধাকপি অনেক কালারের হয়ে থাকে এটা আপনি খুবই সুন্দরভাবে বর্ণনা দিয়েছেন। আপনার সুস্থতা কামনা করছি।

চিংড়ি মাছের সাথে বাঁধাকপির ভাজি রেসিপি দেখে খেতে ইচ্ছে করছে। অনেকদিন খাওয়া হয়নি। আমাদের এখানে শীতের সময় বেশি খাওয়া হয়। কালারটা দেখে বোঝা যাচ্ছে খুবই সুস্বাদু হয়েছে খেতে। রান্নার প্রতিটি ধাপ খুব সুন্দর ভাবে আপনি উপস্থাপন করেছেন। অসংখ্য ধন্যবাদ দাদা আপনাকে সুস্বাদু এবং আমার পছন্দের একটি রেসিপি শেয়ার করার জন্য। শুভকামনা রইল আপনার জন্য।

চিংড়ি মাছ এবং বাঁধাকপি একসাথে করে লোভনীয় একটি ভাজির রেসিপি প্রস্তুত করেছেন এ ধরনের রেসিপি খেতে খুবই মজা হয়ে থাকে। বিশেষ করে রন্ধন প্রণালী খুব সুন্দর ভাবে উপস্থাপন করেছেন এটা সন্দেহ নেই যে খেতে অনেক সুস্বাদু হয়েছিল।

যেকোনো ধরনের সবজি ভাজির সাথে চিংড়ি মাছ দিয়ে ভাজি করলে খেতে খুবই সুস্বাদু লাগে। এই ধরনের খাবার উপভোগ করতে আমি খুবই পছন্দ করি দাদা। আজ দারুন একটি রেসিপি করেছেন সত্যিই অনেক মজাদায়ক খাবার।

চিংড়ির সাথে বাঁধাকপি ভাজি রেসিপি দেখে মনে হচ্ছে খেতে খুবই সুস্বাদু হয়েছে। এ ধরনের খাবার আমার কাছে ভীষণ ভালো লাগে এবং খুবই সুন্দর ভাবে আমাদের মাঝে উপস্থাপনা করেছেন। আপনার জন্য শুভকামনা রইল।

দাদা বেশ কয়েকদিন আপনার কোন পোস্ট দেখতে পেলাম না। অসুস্থ ছিলেন নাকি?
চিংড়ি দিয়ে বাঁধাকপি রান্না করলে এর স্বাদ আরো দ্বিগুণ হয়ে যায়। বাঁধাকপি ভাজি এমনিতে খেতেও খুবই ভালো লাগে। কিন্তু অফ সিজনে বাঁধাকপি কখনো খায়নি। কারণ আমার কাছে মনে হয় যে সিজনের সবজি সিজনেই খেতে বেশি ভালো লাগে। অফ সিজনে এর স্বাদ তেমন পাওয়া যায় না। কিন্তু আপনার বাঁধাকপি দিয়ে চিংড়ি ভাজি দেখে মনে হচ্ছে শীতকালীন বাঁধাকপির মতোই সুস্বাদু হয়েছে। কালার দেখে তো তাই মনে হচ্ছে।

অসুস্থ ছিলাম না কিন্তু ব্যস্ত ছিলাম আর একটু সমস্যাও ছিল ফলে সময় করে উঠতে পারিনি পোস্ট করার ।

হ্যা, এটা ঠিক বলেছেন যে সিজনের সেই সিজনের সবজিই ভালো লাগে কিন্তু অফ সিজনেও যখন মূল সিজনের সবজি খাওয়া হয়, তখনও আরো খাওয়ার আগ্রহটা বেশি হয়, আমারতো অনেকদিন পর কোনো অফ সিজনের সবজি থাকলে খুবই ভালো লাগে খেতে।

বাঁধাকপি কে আমরাও ফুলকপি হিসেবে জানি কিন্তু এটি একটি শীতকালীন শস্য এখন বাঁধাকপি কোথায় পেলেন দাদা। বর্তমানে প্রযুক্তির কল্যাণে সারা বছরে বিভিন্ন ধরনের ফলফলাতেও শাকসবজি পাওয়া যায় সম্ভবত এটা প্রযুক্তির উৎকর্ষ সাধনের ফলাফল। যাইহোক দাদা আপনার আর রেসিপিতে কিন্তু খুব চমৎকার ছিল সাজে স্বাদে গন্ধে খুব অতুলনীয় তা দেখেই বুঝতে পারছি।

চিংড়ি দিয়ে খুব সুন্দর করে বাঁধাকপি রেসিপি তৈরি করেছেন আপনি। দেখে বোঝা যাচ্ছে অনেক সুস্বাদু হয়েছে। চিংড়ি মাছ খেতে আমার ভীষণ ভালো লাগে। খুব সুন্দর উপস্থাপনা করেছেন আপনি ভাই। শুভকামনা রইল আপনার জন্য।

চিংড়ির সাথে বাঁধাকপি ভাজি রেসিপিটি দেখে অনেক লোভনীয় মনে হচ্ছে। দেখে মনে হচ্ছে প্রচুর সুস্বাদু হবে। বাধাকপি এইদিকে এখন পাওয়া যায়না। এটি শীতকালীন একটি সবজি। শীতকালে প্রায়ই বাধাকপির বিভিন্ন রেসিপি বানিয়ে থাকি। এবার সিজন আসলে অবশ্যই এই রেসিপিটি চেষ্টা করবো।

চিংড়ির সাথে বাঁধাকপি ভাজি 😋
বাঁধা কপি আমাদের এদিকেও পাওয়া যায় তবে এখন তেমন কিনতে ইচ্ছে করেনা কারন শীতের সবজি শীতকালে মজা লাগে 😋।
তারপরও এটা ভীষণ পুষ্টিকর এবং স্বাদের সবজি। আর এটা যদি চিংড়ি মাছ দিয়ে রান্না করা যায় তাহলে তো স্বাদ মুখে লেগে থাকে। আপনার রেসিপি আমার ভীষণ ভালো লাগে কারন খুব পরিষ্কার আর গুছিয়ে রান্না করেন। সবথেকে বড় বিষয় পুরো পোস্টটি বেশ গুছিয়ে উপস্থাপন করেছেন 🤗

অনেক দোয়া রইল পুরো পরিবারের জন্য 🥀

আমিও তেমন কিনিনা, তবে মাঝেমধ্যে বাজারে দেখলে একটু খেতেও মন চায় এইসব সবজি। আমি মাঝেমধ্যে নিয়ে আসি এইরকম কিছু কিছু অফ সিজনের সবজি। এইগুলো অনেক পুষ্টিকর, বিশেষ করে কচি পাতাগুলো দারুন টেস্ট লাগে।

আর এইসব ভ্যারাইটির কালারের বাঁধাকপিগুলো খেতেও দারুন লাগে আর বাজারে চাহিদাও বেশি।

ভিন্ন কালারের বাঁধাকপি দেখতে অনেক সুন্দর লাগে। তাই বাজারে এর চাহিদা অনেক বেশি। তবে যাই বলুন না কেন বাঁধাকপি কিন্তু আমার খুবই প্রিয় সবজি। শীতকালে বাঁধাকপি বেশি পাওয়া যায়। তবে এই সময় বাঁধাকপি খাওয়া হয়নি আমার। চিংড়ি মাছের সাথে বাঁধাকপি ভাজি করলে খেতে খুবই ভালো লাগে। আমার পছন্দের চিংড়ি মাছের সাথে যদি বাঁধাকপি রান্না করা হয় তাহলে অনেক তৃপ্তি করে খাওয়া যায় দাদা। আপনার শেয়ার করা এই রেসিপি দেখেই খেতে ইচ্ছা করছে দাদা। আপনি অনেক সুন্দর ভাবে বাঁধাকপি, আলু ও চিংড়ি মাছের রেসিপি তৈরি করে শেয়ার করেছেন এজন্য আপনাকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। সেই সাথে আপনার জন্য শুভকামনা ও ভালোবাসা রইলো দাদা। ❤️❤️❤️

যে সমস্যার কারনে পোস্ট করতে আশাকরি তা কাটিয়ে উঠতে পেরেছেন।

বাঁধাকপি আমরা পাতাকপি বলি একটু বেশি। আসলেই যেহেতু বাঁধাকপির সিজন এখননা সেহেতু এর চাহিদাও বেশি,কিন্তু আমি বুজিনা যদি চাহিদা বেশি যোগান বাড়েনা কেন,,😔 খেতে বেশ ইচ্ছে করে । আমাদের এই দিকে পাওয়া যায় না। পাতাকপির পাকড়া খুব মিস করি। আবার ভাজি করলে ভাত ও সকালের রুটির সাথে খেতে আরো ভালে লাগে। চপনার রেসিপির কথা নতুন করে আর কি বলব। দুর্দান্ত হয়েছে।

  ·  2 months ago (edited)

বাঁধাকপি কে আমাদের আঞ্চলিক ভাষায় পাতাকপি বলা হয়। তবেই বাঁধাকপি আমার খুবই পছন্দের একটি সবজি। আমার কাছে খেতে খুব ভালো লাগে। আর এভাবে যত চিংড়ি মাছ দিয়ে ভাজি করা হয় তাহলে তো এটা খেতে আরো বেশি সুস্বাদু হয়। আপনার এই রান্না দেখেই বোঝা যাচ্ছে আপনার রেসিপিটি খেতে খুবই মজার হয়েছিল। ধন্যবাদ দাদা আমাদের মাঝে শেয়ার করার জন্য।

বাঁধাকপির সাথে চিংড়ি মাছ ভাজি অনেকবার খেয়েছি। তবে আমাদের এখানে এখন বাঁধাকপি পাওয়া যায় না বললেই চলে। আপনার রেসিপিটি দেখে তো এখন এইরকম করে বাঁধাকপি ভাজি খেতে খুব ইচ্ছা করছে। ধন্যবাদ দাদা ভাই প্রতিবার এত মজার মজার রেসিপি আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্য। তবে এরকম দুপুরবেলা এত মজাদার এবং লোভনীয় রেসিপিটি দেখে লোভ সামলানো সত্যিই কষ্টকর হয়ে পড়েছে।

চিংড়ির সাথে বাঁধাকপি ভাজিটা একটু আলাদা লাগলো।কারণ আমাদের শুধু ভাজি করা হয় রুটি দিয়ে খাওয়ার জন্যে।বেশ মজা লাগে।

চিংড়ি ছাড়াও শুধু বাঁধাকপি ভাজা আলু দিয়ে করলে দারুন লাগে। আমিও আগে যখন রুটি খেতাম তখন প্রায় রাতের দিকে ভাজাই খাওয়া হতো, রুটির সাথে অনেক ভালো লাগে এইসব সবজি ভাজা।

দাদা চিংড়ির সাথে বাঁধাকপি জাস্ট ইয়াম্মি লাগে। চিংড়ি ছাড়া যেন বাঁধাকপি মানায় না একে অপরের ভালোবাসার সঙ্গির মতো। যেন চিংড়ি আর বাধাকপির ভালবাসা অতপ্রতভাবে জড়িত। কারণ দুটোই স্বাদে ভরপুর। একটা জিনিস জেনে ভালো লাগলো যে এতগুলো পাতা একসাথে বাধা থাকে বলেই এর নাম বাঁধাকপি এ ব্যাপারটি এর আগে কখনো চিন্তাও করতে পারেনি। আসলে চিন্তা করার জন্য সুন্দর মন মানসিকতা লাগে যা আপনার মাধ্যমে সব সময় খুঁজে পাই। ধন্যবাদ দাদা চমৎকার রেসিপিটি এত সুন্দর বর্ণনার মাধ্যমে তুলে ধরার জন্য।

ওয়াও! দাদা চিংড়ি দিয়ে খুব সুন্দর করে বাঁধাকপি রেসিপি তৈরি করেছেন আপনি, দেখে বোঝা যাচ্ছে অনেক সুস্বাদু হয়েছে। চিংড়ি মাছ খেতে আমার ভীষণ ভালো লাগে এবং এই চিংড়ি মাছ দিয়ে যে কোন সবজির সাথে খুবই চমৎকার লাগে খেতে। খুব সুন্দর উপস্থাপনার মাধ্যমে চিংড়ি মাছ দিয়ে বাঁধাকপি ভাজি রেসিপিটি আমাদের মাঝে শেয়ার করেছেন এজন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। শুভকামনা রইল আপনার জন্য।

চিংড়ির সাথে বাঁধাকপি রেসিপি বেশ মজা লাগে। তবে এই রেসিপিটা আমাদের দেশে শীতের সময় অনেক বেশি খাওয়া হয়। আপনার শেয়ার করার রেসিপি দেখে শীতের সিজনে বাঁধাকপি আর চিংড়ি মাছের সমন্বয় তৈরি রেসিপির স্বাদ মনে পড়ে গেল।

আমি আজকে চিংড়ি কিনেছি তবে বাধাঁকপিও দেখেছিলাম কিন্তু আনা হয় নি। তবে দাদা আপনার রেসিপির মধ্যে একটি বিষয় ভাল লাগে যে এর আগেও বলেছি যে আপনি হয়তো মাছ বেশী ভালবাসেন। যে কোন রান্নায় চিংড়ি থাকবে । মূলত চিংড়ি দিয়ে যে কোন কিছু রান্না করলেই স্বাদ দারুন হয়। তাছাড়া আমার চিংড়ি খুবি প্রিয়। শেষ ছবিতে চিংড়ির সাথে বাধাঁকপির কালার টা দারুন লেগেছে। ধন্যবাদ দাদা ভাল থাকবেন।

বাঁধাকপি আমার কাছেও অনেক সুস্বাদু সবজি তবে শীতকালে। আমাদের এদিকেও কয়েকটি কালারের বাঁধাকপি পাওয়া যায়। বাঁধাকপির নামকরনের তথ্যটি জেনে খুব ভালো লাগলো। বাঁধাকপি যে কাঁচাতেও খাওয়া যায় এটা আমি জানতাম না এভাবে আমার কখনো খাওয়া হয়নি। বাঁধাকপি সবজি হিসাবে যেমন সুস্বাদু ঠিক তেমনি পুষ্টিগুণ সম্পন্ন।
আমরা অনেকেই জানি সবচেয়ে বড় মুকুলের নাম বাঁধাকপি।
যাই হোক চিংড়ি মাছ দিয়ে বাঁধাকপি ভাজি রেসিপি সকলের মত আমার কাছেও অত্যন্ত প্রিয়। আপনি খুব চমৎকার করে রেসিপিটি আমাদের মাঝে শেয়ার করেছেন সুস্বাদু এই রেসিপিটি শেয়ার করার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।

বাঁধা কপি শীত কালিন সবজি হলেও এখন প্রায় সময় ই পাওয়া যায় । এতে একটা সুবিধা আছে । যখন তখন এর স্বাদ নেওয়ার সুযোগ পাওয়া যায় । আমি আমাদের মেসে এক স্বাস্থ্য সচেতন বড় ভাইকে দেখেছি বাঁধা কপি কাচা খেতে । আমিও অবশ্য চেষ্টা করেছি তখন ।
চিঙ্গড়ি দিয়ে বাঁধা কপির স্বাদ নেওয়া এখনো বাকি । তবে এবার লোভ লেগে গেল স্বাদ নিতেই হবে ।

অও,অসময়ে বাঁধাকপি ভাজি দারুণ মজার বিষয় দাদা।যদিও এটি শীতকালীন সবজি তবুও এটি খুবই সুস্বাদু ও উপকারী।বাঁধাকপি ভাজি করে খেতেই বেশি ভালো লাগে আর এটি কাঁকড়া বা চিংড়ির সঙ্গেই বেশি মানায়।বাঁধাকপি কাঁচা হিসেবেও খাওয়া যায় আপনার মাধ্যমে জানলাম দাদা।কখনো কাঁচা পাতা খায়নি।যাইহোক মজার বিষয় হচ্ছে যে চীনারা গব গব করে কাঁচা পাতাকপি খেয়ে ফেলে কেউবা আধা সেদ্ধ করে ,হি হি☺️☺️।দাদা রেসিপিটা খুব সুন্দরভাবে তৈরি করেছেন তারপর ও খুবই লোভনীয় হয়েছে।👌অনেকে অসময়ে বাঁধাকপি ভাজি করার সময় ভাপিয়ে ফেলে দেয়, কেমন গন্ধ লাগে বলে।আমরা অবশ্য কখনো ফেলি না আপনার মত করে রান্না করি।কারণ সেদ্ধ করা জল ফেলে দিলে তো ভিটামিন সব বের হয়ে যাবে।ধন্যবাদ আপনাকে, ভালো থাকবেন।

সেদিন আমরাও বাজার থেকে এনেছিলাম বাঁধাকপি। তবে খুব একটা মজা পেলাম না খেয়ে। আমার কাছে শীতকালেই বেশি ভালো লাগে এই সবজিটি। অবশ্য চিংড়ি দিয়ে খেলে আলাদা একটা মজা হবে। এটা নিশ্চিত। আপনার রান্নার ধরণ টা বেশ ভালো লাগলো দাদা।

চিংড়ি মাছের সাথে বাঁধাকপি ভাজা খেতে সত্যি অনেক সুস্বাদ এবং মজাদার লাগে। চিংড়ি মাছ ও বাঁধাকপি দিয়ে রেসিপি তৈরির মধ্যে আলু দেওয়ার বিষয়টি আমার কাছে সবচাইতে বেশি ভালো লেগেছে। খুবই লোভনীয় একটি রেসিপি আমাদের নিকট পোস্ট চমৎকারভাবে উপস্থাপন করার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

শীতকালে বাঁধাকপি ভাজি খেতে ভাল লাগে । গরমকালে আসলে শীতের সবজি খাওয়া হয়না । দাদা আপনার রেসিপি দেখে মনে হচ্ছে বেশ মজার হয়েছে । অনেক ধন্যবাদ আপনাকে দাদা ।

আমাদের বাসায় এটাকে পাতাকপি বলা হয়।আমার কাছে নুডলস অথবা সবজির সাথে দিয়ে রান্না করে খেতে বেশ ভালো লাগে।তবে এভাবে আলু আর চিংড়ি দিয়ে কখনো খাওয়া হয়নি।দেখেই মনে খেতে বেশ স্বাদ হয়েছে।দাদার বাসায় যেয়ে একদিন দাওয়াত খেয়ে আসতে হবে😉।হা হা।ধন্যবাদ

আমার খুব প্রিয় একটি রেসিপি আজকে আপনি শেয়ার করেছেন দাদা ।আসলে বাঁধাকপি বা পাতাকপি বেশিরভাগ শীতকালে খাওয়া হয়ে থাকে। অন্যান্য সময় তেমন একটা খাওয়া হয়ে ওঠেনা। শীতকালে এর মজাটাই যেন অসাধারণ মনে হয়। আমরা সাধারণত এমনিতেই বাঁধাকপি ভেজে থাকি। আর সাধারণত চিংড়ি মাছ দিয়ে বা ডাল দিয়ে রান্না করে খেয়ে থাকে‌। যা খেতে অসাধারণ লাগে ।তবে এই বাঁধাকপি ভাজি করে খেতে বেশ ভালো লাগে ।আর এই অসময়ে আপনি বাঁধাকপিটি ভাজি করেছেন তার সাথে চিংড়ি মাছ দিয়েছেন যা দেখতেই তো অসাধারণ লাগতেছে ।আর চিংড়ি মাছ আমার খুবই প্রিয় ।এজন্যই বলা যায় এটি অনেক বেশি সুস্বাদু হবে।