প্রতিযোগিতা - ২১ আমার অংশ গ্রহণ "ইলিশ পটলের দোলমার রোস্ট""

in hive-129948 •  last month 

বন্ধুরা
আপনারা সবাই কেমন আছেন? আশা করি আপনারা সবাই ভালো আছেন।প্রথমে "আমার বাংলা ব্লগ"কমিউনিটির এডমিন ও মডারেটর সকল ভাই ও বোনদের জানাই আমার ভালোবাসা। আর বিশেষ করে @ Hafizullah ভাইয়া কে ধন্যবাদ জানাই এত একটি প্রতিযোগিতার আয়োজন করার জন্য।আজ অনেকদিন পর আবার অনেকদিন পর প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করছি।
পটল দিয়ে ইউনিক রেসিপি তৈরি করা আমার কাছে খুবই কঠিন একটি কাজ ছিলো। কারণ আমি পটল খুব একটা পছন্দ করি না। তারপর ও আমি নতুন নতুন রেসিপি তৈরি করতে খুবই ভালো লাগে। আর সেই ভালো লাগা থেকে আমি দুটি রেসিপি তৈরি করছি। একটি আমার নিজস্ব তৈরি আর অন্যটি বোনাস হিসেবে আপনাদের সাথে শেয়ার করবো।

জনপ্রিয় সবজির মধ্য পটল অন্যতম একটি সবজি। কমবেশি আমরা সকলে পটল পছন্দ করি। পটল বিভিন্ন পদ্ধতিতে রান্না করে খাওয়া যায়। ভর্তা , ভাজি, মাছ এবং সেই সঙ্গে বিভিন্ন সবজির সঙ্গে ও রান্না করে খাওয়া যায়। ইলিশ পটলের জল জনপ্রিয় একটি রেসিপি। সারা বছরই পটল পাওয়া যায় বাজারে। ছোট এই সবজিটি দেখতে অনেক সুন্দর। পটলের বৈজ্ঞানিক নাম trichodsnthes dioica। এই সবজি ভারতের পূর্বাঞ্চলে বিশেষ করে ওড়িশা, আসাম ,বিহার ,উত্তর প্রদেশ ,এবং বাংলাদেশে ভালো জন্মায়।পটলের ইংরেজি নাম multitude। পটলের প্রচুর পরিমাণে শর্করা , ভিটামিন এ ও সি আছে। এতে স্বল্প পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম ,পটাশিয়াম, গন্ধক ও ক্লোরিন আছে। বিদেশে ও পটলের গুরুত্ব অপরিসীম।নেপালে অসুস্থ রোগীদের পটলের স্যুপ খাওয়ানো হয়। দক্ষিণ এশিয়া ও ওয়েস্ট ইন্ডিজে আলুর সঙ্গে রান্না করা হয়। ইন্দোনেশিয়ার পটলের বৈচিত্র্যময় হিসেবে রান্নার ব্যবহার করা হয়। পটল একটি পুষ্টিকর খাদ্য। পটল আমরা সবজি হিসেবে রান্না করে থাকি। পটল আমাদের শরীরের জন্য খুবই উপকারী। পটল হজম শক্তিতে সাহায্য করে। পটল ওজন কমাতে সাহায্য করে। তাই ওজন কমাতে পটলের তরকারি করে খাওয়া খুবই ভালো। পটলে হৃদরোগ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি থাকে না। নিয়মিত পটল খেলে রক্ত পরিষ্কার হয়। ফলে আমাদের ত্বক ভালো থাকে। পটল বয়সের চাপ দূর করতে সাহায্য করে।
যাই হোক আজ আমি "ইলিশ পটলের দোলমার রোস্ট" এর রেসিপি শেয়ার করবো।তাহলে চলুন কথা না বাড়িয়ে আমরা মূল পর্বে ফিরে যাই।

IMG_20220817_133932.jpg

IMG_20220817_134049.jpg
উপকরণ:
১. পটল - ৫০০ গ্রাম
২. ইলিশ মাছ -৬ পিস
৩. পেঁয়াজ বাটা - ২ চামচ
৪. কাজু বাদাম বাটা - হাপ্ কাপ
৫. কিসমিস বাটা - ২ চামচ
৬. নারকেলের দুধ - ২ কাপ
৭. টুট পিক
৮. লবণ - ২ চামচ
৯. হলুদ - ২ চামচ
১০. শুকনো মরিচ গুঁড়া - ২ চামচ
১১. জিরা গুঁড়া - ১ চামচ
১২. কাচা মরিচ চিরা - ৫ টি
১৩. গোটা জিরা - ১ চামচ
১৪.গরম মসলা - ২ চামচ
১৫. গোলাপ জল - ১ চামচ
১৬.কেওড়া জল - ১ চামচ
১৭. সরিষার তেল - ১ কাপ

IMG_20220817_075558.jpg
পটল

IMG_20220817_085754.jpg
ইলিশ মাছ

![IMG_20220817_111407.jpg](
নারকেলের দুধ

IMG_20220817_093033.jpg
কাজু বাদাম বাটা, পেঁয়াজ পেস্ট ও কিসমিস বাটা

IMG_20220802_190639.jpg
লবণ, হলুদ, জিরা গুঁড়া, শুকনো মরিচ গুঁড়া ও গরম মসলা

IMG_20220817_121622.jpg
টুট পিক
প্রস্তুত প্রণালী:
১. প্রথমে পটল গুলোর খোসা ছাড়িয়ে নেওয়ার আগে জল দিয়ে ধুয়ে নিতে হবে। এবার পটলের খোসা ছাড়িয়ে নিতে হবে। একটা ছুরি দিয়ে পটলের মাথা থেকে বেশ খানিকটা কেটে নিতে হবে।

IMG_20220817_080101.jpg
২.এবার পটলের ভিতর থেকে একটা চামচ দিয়ে বীজ বের করে নিতে হবে।ঠিক একই ভাবে প্রতিটা পটলের বীজ বের করে নিতে হবে।

IMG_20220817_083803.jpg

IMG_20220817_085451.jpg
৩. পটল এর বীজ গুলো ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে পেস্ট তৈরি করে নিতে হবে।

IMG_20220817_111338.jpg
৪. ইলিশ মাছ গুলো ভালো করে ধুয়ে পরিষ্কার নিতে হবে। এরপর সামান্য লবণ হলুদ দিয়ে ইলিশ মাছে মেখে নিতে হবে।

IMG_20220817_085618.jpg
৫. এবার চুলার উপর একটা ফ্রাই প্যান বসিয়ে দিতে হবে। ফ্রাই প্যান গরম হয়ে গেলে পরিমান মতো তেল দিয়ে দিতে হবে। তেল গরম হয়ে গেলে লবণ হলুদ মাখানো মাছ দিয়ে দিতে হবে।

IMG_20220817_114732.jpg

IMG_20220817_090443.jpg
৬. মাছ গুলো বাদামী রঙের করে ভেজে নিতে হবে। মাছ গুলো ভাজা হয়ে গেলে একটা পাত্রে নামিয়ে নিতে হবে।

IMG_20220817_090014.jpg

IMG_20220817_092513.jpg
৭. এবার ভাজা মাছের কাঁটা বেছে নিতে হবে। একে একে সব গুলো মাছের কাটা বেছে আলাদা করে রাখতে হবে।

IMG_20220817_111924.jpg

IMG_20220817_114455.jpg
৮. আবার চুলার উপর ফ্রাই প্যান বসিয়ে দিয়ে তেল দিয়ে দিতে হবে। তেল গরম হয়ে সামান্য কিছু গোটা জিরা দিয়ে দিতে হবে।জিরা ভাজা হয়ে গেলে পটলের বিচির পেস্ট দিয়ে দিতে হবে। এবার একে একে সামান্য লবণ ও হলুদ দিয়ে কিছুক্ষন নেড়ে চেড়ে নিতে মাছ দিয়ে দিতে হবে। এবার মাছের ভিতর পরিমান মতো লবণ, হলুদ, জিরা গুঁড়া ও শুকনো মরিচ গুঁড়া দিয়ে দিতে হবে। মাছ গুলো ১০ মিনিটের মতো ভেজে নিতে হবে। ইলিশ মাছ ভাজা হয়ে গেলে একটা পাত্রে নামিয়ে নিতে হবে।

IMG_20220817_114821.jpg

IMG_20220817_115124.jpg

IMG_20220817_115149.jpg

IMG_20220817_115215.jpg

IMG_20220817_115330.jpg

IMG_20220817_115438.jpg

IMG_20220817_115812.jpg

IMG_20220817_115943.jpg

IMG_20220817_115953.jpg
৯. ইলিশ মাছের পুর একে একে সব গুলো পটলের ভিতর ঢুকিয়ে নিতে হবে। তারপর পটলের কেটে রাখা বোঁটা লাগিয়ে দিয়ে টুট পিক দিয়ে এটে দিতে হবে।

IMG_20220817_120403.jpg

IMG_20220817_120413.jpg

IMG_20220817_121555.jpg

IMG_20220817_121808.jpg

IMG_20220817_122729.jpg
১০.এবার চুলার উপর একটা কড়াই বসিয়ে দিতে হবে। কড়াই গরম হয়ে গেলে তেল দিয়ে দিতে হবে।তেল গরম হয়ে গেলে পটল গুলো দিয়ে হালকা ভেজে নিতে হবে।পটল ভাজা হয়ে গেলে একটা পাত্রে নামিয়ে নিতে হবে। ওই একই তেলের ভিতর জিরা দিয়ে একটু ভেজে পেঁয়াজ বাটা, কাজু বাদাম বাটা ও কিসমিস বাটা দিয়ে দিতে হবে। এবার লবণ, হলুদ , জিরা গুঁড়া ও শুকনো মরিচ গুঁড়া দিয়ে ভালো করে মসলা কষিয়ে নিতে হবে।

IMG_20220817_114719.jpg

IMG_20220817_122930.jpg

IMG_20220817_123007.jpg

IMG_20220817_124111.jpg

IMG_20220817_123421.jpg

IMG_20220817_123615.jpg

IMG_20220817_123530.jpg
১১. মসলা কষানো হলে গেলে নারকেলের দুধ দিয়ে দিতে হবে। এবার ঝোল ফুটতে শুরু করলে ভাজা পটল গুলো দিয়ে দিতে হবে। পটল গুলো দিয়ে একটা ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। এবার ১৫ মিনিটের মতো পটলের রোস্ট রান্না করে নিতে হবে। পটল সেদ্ধ হয়ে গেলে কয়েকটি কাচা মরিচ চিরে দিতে হবে এবং গোলাপ জল ও কেওড়া জল দিয়ে দিতে হবে।এবার রোস্ট থেকে হালকা তেল বের হয়ে গেলে একটা পাত্রে নামিয়ে নিতে হবে।

IMG_20220817_123551.jpg

IMG_20220817_124005.jpg

IMG_20220817_124148.jpg

IMG_20220817_124300.jpg

IMG_20220817_124315.jpg

IMG_20220817_132914.jpg

IMG_20220817_133932.jpg
১৩. এবার টমেটো দিয়ে কয়েকটি ফুল বানিয়ে সাজিয়ে দিলাম।

IMG_20220817_134001.jpg
তৈরি হয়ে ইউনিক রেসিপি ইলিশ পটলের দোলমার রোস্ট। এটি গরম গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করতে হবে।আশা করি এই রেসিপিটি আপনাদের ভালো লাগবে।
বোনাস একটি রেসিপি " পটলের পটাস "
এই রেসিপিটি তৈরি করছি আমি। কিন্তু এই রেসিপিটি আইডিয়া দিয়েছিলেন আমার প্রিয় মানুষটি। আমি বলেছিলাম তাকে রান্না করতে । কিন্তু সে কোন ভাবেই রাজি হলো না। এটি খেতে দুর্দান্ত হয়েছিলো। ও পাশে থেকে আমাকে বলে দিয়েছিলো। এই রেসিপিটি নরমাল ও মসলা কম দিয়ে রান্না করছি।তবে চলুন রেসিপিটি শুরু করা যাক।

IMG_20220816_230735.jpg
উপকরণ:
১. মুরগির মাংস - ১০০ গ্রাম
২. চিংড়ি মাছ - ১০০ গ্রাম
৩. সেদ্ধ ডিম - ১ টি
৪. সেদ্ধ আলু - ১ টি
৫. লবণ - ,২ চামচ
৬. হলুদ - ২ চামচ
৭. জিরা গুড়া - ২ চামচ
৮. শুকনো মরিচ গুঁড়া -১ চামচ
৯. গরম মসলা - ১ চামচ
১০. সাদা তেল - ১ কাপ
১১. গোটা জিরা - ১ চামচ
১২.কাচা মরিচ - ৬ টি
১৩. তেজ পাতা - ২ টি ও কিছু গোটা গরম মসলা
১৪. পটল - ৫০০ গ্রাম
১৫. টুট পিক

IMG_20220816_185649.jpg
পটল

IMG_20220816_200246.jpg

IMG_20220802_190635.jpg

IMG_20220802_191131.jpg

IMG_20220816_200437.jpg
মুরগির মাংস ও চিংড়ি মাছ

IMG_20220817_121622.jpg
প্রস্তুত প্রণালী:
১. প্রথমে পটল গুলোর খোসা ছাড়িয়ে নিতে হবে। এবং পটলের দুই মাথা কেটে নিতে হবে।

IMG_20220816_185749.jpg

IMG_20220816_190944.jpg

২. এবার একটা ছুরি দিয়ে পটলের মাঝ বরাবর কেটে নিতে হবে। একটা চামচ দিয়ে পটলের ভিতর থেকে সমস্ত বিচি বের করে নিতে হবে ।

IMG_20220816_191336.jpg

IMG_20220816_191438.jpg

IMG_20220816_191602.jpg

IMG_20220816_195910.jpg

৩. এবার ব্লেন্ডারে একই সঙ্গে পটলের অর্ধেক বিচি , মুরগির মাংস, চিংড়ি মাছ, কাচা মরিচ ৬ টি, লবণ ও জিরার গুঁড়া দিয়ে একসাথে ব্লেন্ড করে নিতে হবে।

IMG_20220816_201152.jpg

IMG_20220816_202134.jpg

৪. এখন সেদ্ধ আলু ও ডিম এক সাথে মেখে নিতে হবে।

IMG_20220816_202251.jpg

৫.চুলার উপর একটা ফ্রাই প্যান বসিয়ে দিতে হবে।ফ্রাই প্যান গরম হয়ে গেলে তেল দিয়ে দিতে হবে।তেল গরম হয়ে গেলে বাকি পটলের বিচি ও মাংসের কিমা দিতে হবে। কিমার সাথে শুকনো মরিচ গুঁড়া দিয়ে কিছুক্ষণ ভেজে নিতে হবে। ভাজা হয়ে গেলে মাংসের পুর তৈরি। এবার একটা পাত্রে নামিয়ে নিতে হবে।

IMG_20220816_202649.jpg

IMG_20220816_203338.jpg

IMG_20220816_203919.jpg

IMG_20220816_204406.jpg

IMG_20220816_205938.jpg
৬. এবার মাংসের পুর পটলের ভিতর ঢুকিয়ে দিতে হবে। পটলের ফাটা অংশটি টুট পিক দিয়ে এটে দিতে হবে।

IMG_20220816_210842.jpg

IMG_20220816_212444.jpg

IMG_20220816_212424.jpg
৭. চুলার উপর একটা কড়াই বসিয়ে দিতে হবে ।কড়াই গরম হয়ে গেলে তেল দিয়ে দিতে হবে। তেল গরম হয়ে গেলে পটল গুলো দিয়ে হালকা ভেজে নিতে হবে। পটল ভাজা হয়ে গেলে একটা পাত্রে নামিয়ে নিতে হবে।

IMG_20220816_212610.jpg

IMG_20220816_212800.jpg

IMG_20220816_212821.jpg

IMG_20220816_214727.jpg
৮. এবার কড়াইতে বাকি তেলের ভিতর জিরা দিয়ে ভেজে নিতে হবে। জিরা ভাজা হয়ে গেলে পরিমান মতো জল দিয়ে । ঝোল ফুটতে শুরু পরিমান মতো লবণ, হলুদ, জিরা গুঁড়া ও শুকনো মরিচ গুঁড়া দিয়ে দিতে হবে। এবং কিছুক্ষণ ধরে রান্না করে নিতে পারে।ঝোল একটু কমে গেলে ভাজা পটল গুলো দিয়ে দিতে হবে।এবার একটা ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। এবং চুলার আঁচ কমিয়ে দিতে হবে। পটল গুলো সেদ্ধ হয়ে গেলে আর ঝোল গা মাখা হয়ে গেলে এক চামচ গরম মশলার গুড়ো ছিটিয়ে দিতে হবে। এবং দুই মিনিট পর একটা পাত্রে নামিয়ে নিতে হবে।

IMG_20220816_214604.jpg

IMG_20220816_220447.jpg

IMG_20220816_220500.jpg

IMG_20220816_220516.jpg

IMG_20220816_223337.jpg

IMG_20220816_224003.jpg

IMG_20220816_225859.jpg

IMG_20220816_230735.jpg

৯. এবার টমেটো দিয়ে সাজিয়ে দিলাম।

IMG_20220816_230824.jpg
তৈরি হয়ে গেল সুস্বাদু পটলের পটাস। এটি গরম গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করতে হবে।

IMG_20220816_230741.jpg

Authors get paid when people like you upvote their post.
If you enjoyed what you read here, create your account today and start earning FREE STEEM!
Sort Order:  

আপু প্রতিযোগিতায় আপনার অংশগ্রহণ দেখে আমার অনেক ভালো লেগেছে।ইলিশ পটলের দোলমার রোস্ট তৈরি সকল প্রক্রিয়াগুলো পড়েছি এবং মুগ্ধ হয়েছি। অতি যত্ন এবং পরিশ্রম করে আপনি অসাধারণভাবে ইলিশ পটলের দোলমার রোস্ট তৈরি করেছেন। আপনার পোস্ট পড়ে মনে হচ্ছে ইলিশ পটলের দোলমার রোস্ট খেতে অনেক মজাদার এবং সুস্বাদু ছিল। অসাধারণ একটি রেসিপি শেয়ার করার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

প্রতিযোগিতায় আপনার অংশগ্রহণ বরাবর আমাদেরকে অনুপ্রাণিত করে।ধন্যবাদ বৌদি প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার জন্য।
আর রেসিপির কথা কি বলব,মনে হচ্ছে খেতে পারলে দারুন হতো😁

দিদি ইলিশ পটলের দোরমার রোস্ট অনেক সুন্দর ছিল।আসলে এভাবে কখনো তৈরি করা হয়নি।দেখে মনে হচ্ছে অনেক সুস্বাদু ও মজার হয়েছে।চেষ্টা করব একদিন আপনার মতো ইলিশ পটলের দোরমার রোস্ট করার।ধন্যবাদ দিদি সুন্দর রেসিপি শেয়ার করার জন্য।

দুর্দান্ত দুটি রেসিপি দেখে নিলাম এখন। কোনটিই এখনো খাওয়া হয়নি আমার। দেখে লোভ সামলানো দায়। দাদাও বেশ ভালোই আইডিয়া দিয়েছেন। যাইহোক প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণ করার জন্য অভিনন্দন আপু৷ শুভকামনা রইল আপু 🙂।

ইলিশ পটলের দোপেয়াজা রেসিপি আমার কাছে একদম নতুন মনে হয়েছে। আর দেখে খুবই মজাদার মনে হচ্ছে। সত্যি বৌদি আপনার রেসিপির পরিবেশন অসাধারণ ছিল।

ওয়াও দিদি আপনি আমার বাংলা ব্লগ প্রতিযোগিতা-২১ তম অনেক সুন্দর ভাবে অংশগ্রহণ করেছেন। ইলিশ পটলের দোলমার রোস্ট তৈরি করে আপনি অনেক সুন্দর ভাবে ধাপে ধাপে আমাদের মাঝে শেয়ার করেছেন। সত্যি বলতে এই আইডিয়াটা একদম ইউনিক বলতে হয়। ধন্যবাদ দিদি এত সুন্দর একটি পোস্ট আমাদের মাঝে শেয়ার করার জন্য।

সত্যিই ভীষণ সুন্দর হয়েছে আপনার ইলিশ পটলের দোলমার রোস্ট। একেবারেই ইউনিক। এতগুলো ছবি দিয়ে পোস্ট যা বোঝার ক্ষেত্রে খুবই সুবিধার।

ইলিশ পটলের দোলমার রোস্ট দেখে তো লোভ সামলানো মুশকিল খেতে ইচ্ছা করছে। ইউনিক রেসিপি শেয়ার করেছেন বৌদি। আমিও শিখে নিলাম বাসায় তৈরি করার চেষ্টা করবো। আপনার জন্য শুভ কামনা রইলো ভালো থাকুন।

ইলিশ পটলের দোলমার রোস্ট ও পটলের পটাস দুটো রেসিপি দারুন ছিল বৌদি। দেখেই খেতে ইচ্ছা করছে। বৌদি আপনি সবসময় ইউনিক ধরনের রেসিপি গুলো তুলে ধরেন আমাদের মাঝে। এবারের শেয়ার করা দুইটি রেসিপি আমার কাছে অসাধারণ লেগেছে। আমি অবশ্যই বাসায় তৈরি করার চেষ্টা করব। আপনার জন্য অনেক অনেক ভালোবাসা রইলো বৌদি। ♥️♥️♥️

আমার দেখা স্টিমেট জগতে সব থেকে সেরা পোস্ট।আমি দেখে লেখার ভাষা হারিয়ে ফেলেছি যে কি লিখবো।সত্যিই বৌদি এত সুন্দর এত সুন্দর একটি পোস্ট আমাদের মাঝে শোয়ার করার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ আপনার ধৈর্য দেখে আমি মুগ্ধ ।

বৌদি নমস্কার
যাক শেষ মেস প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করলেন ৷যেটা আমার কাছে অনেক ভালো লাগলো ৷একটা নতুন ইউনিক নতুন রেসেপি দেখলাম ৷সবাই অনেক ভালো ভালো আইটেম করেছে৷ আপনার টাও কম নয় অসাধারণ ৷

বৌদি আপনার দুটি রেসিপি দুর্দান্ত হয়েছে। আপনার বোনাস রেসিপি টি আমার কাছে মনে হয় সকলের কাছে বোনাস।দুটি রেসিপি এতো সুন্দর যত্ন করে তৈরি করেছেন সুস্বাদু না হওয়ার কোন সুযোগ নেই। টমেটোর গোলাপ দিয়ে পরিবেশন করেছেন তাতে করে ষোল কলা পূর্ণ হয়েছে। অনেক ধন্যবাদ বৌদি সুন্দর রেসিপি গুলো শেয়ার করার জন্য।ভালো থাকবেন বৌদি।

দিদি তোমার হাতে সত্যি জাদু আছে। কাল আমি পুরো ভাতটাই ইলিশ পটোলের দোলমার রোস্ট দিয়েই খেয়ে নিলাম। আর পটল পটাস এর ভিতরে কিমা ❤️❤️❤️❤️। তোমার খাবারের যতই প্রশংসা করি মনে হয় সেটাই কম হয়ে যাবে। ভালোবাসা নিও ❤️❤️।

এবার রেসিপি করা পুরোপুরি সার্থক। তুমি খুব তৃপ্তি সহকারে খেয়েছো আর তোমার দাদা ও তাই। আমি তৈরি করার সময় ভাবছিলাম কী করে তোমাকে খাওয়ানো যায়।আমি জানি তুমি ও তোমার দাদার মতো নতুন নতুন খাবার খেতে খুবই পছন্দ করো।

আপনি অনেক সুন্দর করে ইলিশ পটলের দোলমার রোস্ট রেসিপি করেছেন। এভাবে কখনো খাওয়া হয়নি। রেসিপিটি দেখে লোভ সামলাতে পারতেছিনা। মন চাইতেছে সবগুলো আমি খেয়ে ফেলি। শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত খুব সুন্দর করে আমাদের মাঝে উপস্থাপনা করেছেন। আপনার জন্য অনেক অনেক শুভকামনা রইল।

দিদিভাই মুখে জল চলে আসলো তো 🥰🥰🤗। দুর্দান্ত রেসিপি 👌👌👌👌। আমি শুধু ভাবছি কতটা সময় নিয়ে এত কিছু করেছেন! আপনি বলেই এটা সম্ভব সত্যি 🙏। প্রথম রেসিপি টার তো তুলনা নেই । আর দ্বিতীয় টা দাদা বলেই দৌড় 😉। হিহিহিহি। চমৎকার আয়োজন ছিল পরের টাও । আমি তো ছবি দেখে দেখে পেট ভরানোর চেষ্টা করে চলেছি দিদিভাই 🥰🥰।

এই কনটেস্টে আপনার অংশগ্রহণ করা দেখে আমার খুবই ভালো লাগলো। ইলিশ মাছের সমন্বয়ে রান্না করে আমাদের দেখিয়েছেন। আপনার রেসিপি দেখে মনে হচ্ছে বেশ সুস্বাদু হয়েছিল। আপনার পোস্ট এর উপস্থাপনা খুব ভালো লেগেছে।

বৌদি আদাব
প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করার জন্য আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। ইলিশ পটলের দোরমার রোস্ট আপনি খুব সুন্দর ভাবে তৈরি করেছেন পাশাপাশি খুব দক্ষ ভাবে রেসিপিটি তৈরির প্রক্রিয়া ধাপে ধাপে আমাদের মাঝে উপস্থাপন করেছেন। ধন্যবাদ দিদি আপনার জন্য অনেক শুভকামনা রইল।

দেখেই জিভে জল আসার মত। তাও আবার দুটো রেসিপি। খেতে যে কতটা টেস্টি হতে পারে কল্পনা করে নিয়েছি । ভালো থেকো বৌদি।

ইলিশ পটলের দোলমার রোস্ট রেসিপি অসাধারণ হয়েছে বৌদি। আপনি খুবই সুস্বাদু করে খুবই দারুণ একটি রেসিপি তৈরি করেছেন। এই রেসিপিটি আমার কাছে খুবই ইউনিক এবং খুবই লোভনীয় লেগেছে। শুভকামনা রইল আপনার জন্য।

অও,বৌদি দুটি রেসিপিই বেশ লোভনীয় হয়েছে।আর দুটি রেসিপি তৈরি করতে আপনার বেশ পরিশ্রম করতে হয়েছে, দেখেই বোঝা যাচ্ছে ।আমার কাছে তো ইলিশ পটলের দোলমার রোস্টটি বেশি ভালো লেগেছে।ইলিশ মাছ মানেই আলাদা রকমের মুখে লেগে থাকার মতো স্বাদ।খুবই ভালো লাগলো রেসিপি দুটি দেখে, ধন্যবাদ আপনাকে।

রেসিপিটা আমার কাছে অসাধারন লেগেছে বৌদি।আপনার রান্নার প্রতিটি ধাপে খুব সুন্দর করে দেখিয়েছে , যা কিনা দেখে নিজেই করতে পারি । ধন্যবাদ শেয়ার করার জন্য