বন্ধু নাং, ফূর্তি নাং

in hive-129948 •  2 months ago 

27-09-2022

১২ আশ্বিন ,১৪২৯ বঙ্গাব্দ


আসসালামুআলাইকুম সবাইকে


কেমন আছেন সবাই? নিশ্চয় খুব ভালো আছেন আপনারা 🌼। আমি ভালো আছি। গতকাল আমরা সবাই টিনটিন বাবুর বার্থডে সেলিব্রেশন একসাথে উদযাপন করলাম। সবাই হাসিখুশিতে মেতে ছিলাম কিছুক্ষণের জন্য। যায়হোক,

people-821624_1280.jpg

copyright free image from pixabay

নেটওয়ার্কের বাইরে নাটকে দেখেছিলাম এক বন্ধু আরেক বন্ধুকে বাচাঁতে গিয়ে চারজনই জীবন দিয়ে দেয়। একজনের জন্য প্রাণ চলে যায় চারজনের। এটাই বুঝি সত্যিকারের বন্ধুত্ব। জীবনের গুরুত্বপূর্ণ মোমেন্ট আমরা সবাই বন্ধুদের সাথে পার করে এসেছি। সবার জীবনে এমন কিছু বন্ধু থাকে যাদের সাথে নির্দ্বিধায় সবকিছু শেয়ার করা যায়। যে বিষয়গুলো আমরা চাইলেও পরিবারের সাথে শেয়ার করতে পারিনা। এমন কিছু বন্ধু থাকাও ভাগ্যের ব্যাপার। ফ্রেন্ড সার্কেলের সব থেকে বোকা ছেলেটাও আমার বন্ধু,যাকে নিয়ে সবসময় আমরা হাসিতে মেতে থাকতাম। সবসময় আমাদের হাসিখুশিতে রাখতো ছেলেটাও আমাদের বন্ধু। যাকে ছাড়া আড্ডা জমতই না। বন্ধুদের নিয়েই যেন আমাদের বেচেঁ থাকা।

তবে সবার জীবনে ভালো খারাপ মিলিয়েই কিছু বন্ধু থেকে থাকে। আমার কাছে মনে হয় না বন্ধু শব্দের মানুষগুলো খারাপ হতে পারে। হতে পারে কিছুসংখ্যক নেশা করে থাকে তারপরেও সে আমাদের বন্ধু। বিপদে আপনি দেখবেন তাদেরকেই আগে পাশে পাওয়া যায়। কথায় আছে না, "বিপদের সময় যে বন্ধু পাশে দাড়াঁয় সেই তো প্রকৃত বন্ধু। " এবার রিয়েল লাইফে আসা যাক। সেই স্কুল লাইফ থেকে এখন অবধি অনেক বন্ধু পেয়েছি, সামনে আরও পাবো হয়তো। তাদের সাথে কাটানো সময়গুলো রঙিন থাকবে। গতকাল প্র্যাকটিক্যাল পরীক্ষা শেষ হয়ে গেল! সবাই প্রিয় ক্যাম্পাস ছেড়ে বাড়ি যাওয়ার জন্য প্রস্তুত। পরীক্ষা শেষ করেই ট্রেনে করে চলে যাবে নিজ বাড়িতে। মেসের সবাই চলে গেছে বাড়িতে। আমি একা হয়ে গেলাম। ভীষণ রকমের একা ফিল হচ্ছে আসলে। আমার ট্রেন আজ দুইটায় তাই তাদের সাথে এবার আমার যাওয়া হলো না।

টিকেট ছাড়া ট্রেনে জার্নি অনেক ঝামেলা পোহাতে হয়। আর এবার জিনিসপত্র সব নিয়ে যেতে হবে। এজন্য আমি কোনো রিস্ক নেয়নি। আর এদিকে ঢাকা যেতে হবে। আপুকে আমাদের বাড়িতে নিয়ে যেতে হবে। ভাগ্নী খুব কান্নাকাটি করছে আমাদের বাড়িতে যাওয়ার জন্য। তাই দুইদিন পরে আমার ট্রেন জার্নি। গতকাল মেসের সবাই চলে গেছে। বন্ধুদের সাথে মেসে সবসময় হাসি আনন্দে মেতে থাকতাম আর এখন মেস একদম ফাকাঁ। এইতো জীবন! জীবনের গতিধারার সাথে আমাদেরকেও মানিয়ে নিতে হয়। কত মজা করেছি বন্ধুদের সাথে। বন্ধুদের ছাড়া কোনো আড্ডাই জমে না। মুড়ি পার্টি থেকে শুরু করে বিরিয়ানী পার্টি সবাই একসাথে মিলে করে ফেলতাম। একজনের ভাগে কম পরলে আরকজনের ভাগ থেকে দিয়ে দিতাম। এইতো ছিল মেস লাইফ বন্ধুদের সাথে। দীর্ঘ একটি বছর ফেনী শহরে থেকেছি বন্ধুদের সাথে। আরেকবার ইন্ডাস্ট্রিয়াল শেষে ফেনী শহরে আসবো। শহরটাকে বড্ড মিস করবো সেই সাথে বন্ধুদের সাথে কাটানো মুহূর্তগুলো।

গতকাল থেকে আমি মেসে একা! বন্ধুদের ছাড়া অনেক খারাপ লাগছিল। তারপর হ্যাংআউট শুরু হওয়ার পর থেকে মনটা অনেক ভালো হয়ে গেল। আসলে আমার বাংলা ব্লগের ডিস্কর্ডে এসে কথা বললেই মনটা যেন ভালো হয়ে যায়। টিনটিন বাবুর জন্মদিন ছিল সবাই যখন উইশ করতেছিল মনে হচ্ছিল আমি রুমে একা নয়, আমার সাথে আরও অনেকজন আছে। ভার্চুয়ালি আমরা সবাই আড্ডা দিলেও আমাদের সম্পর্কটা যেন খুব গভীর। একে অপরের সুখে দুঃখে পাশে থাকা। টিনটিন বাবুর জন্মদিন আমরা সবাই অনেক মজা করেই উদযাপন করেছি। দাদা কেক কেটেছে সেটা আমাদের সাথে শেয়ার করেছে। আমরা খুব খুশি। বিনোদন পর্বে চমৎকার সব গান, কবিতা, জোকস শুনে মনটাই ভালো হয়ে গেল। পুরোটা সময় খুব উপভোগ করলাম। ডিস্কর্ডে অনেক আপু, ভাই পেয়েছি। তাদের সাথে আড্ডা দিতেও ভালো লাগে। প্রতিদিন আমরা একে অপরের খোজঁ খবর নিতে পারি। হোক সেটা ভার্চুয়ালি কিন্তু মনে হয় যেন তারা কত আপনজন। আমার বাংলা ব্লগ একটি আবেগের জায়গা,ভালোবাসায় জায়গা।

আসলে বন্ধু না থাকলে আপনি কখনোই জীবনে ফূর্তি পাবেন না। বন্ধুদের সাথে আড্ডার মাঝে কতোশত স্মৃতি জড়িয়ে থাকে তার হিসেব নেই। বন্ধুরা আছে বলেই স্বপ্নগুলো রঙিন হয়, বন্ধুরা আছে বলেই মনে শক্তি পায়, বন্ধুরা আছে বলেই ডিপ্রেশনে থাকা ছেলেটাও হাসিতে মেতে উঠে। বেচেঁ থাকুক বন্ধুত্ব চিরকাল এমনটাই প্রত্যাশা করি। সকলের সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে আজকের মতো এখানেই শেষ করছি।



10% beneficary for @shyfox ❤️

C3TZR1g81UNaPs7vzNXHueW5ZM76DSHWEY7onmfLxcK2iNzq2MSXKSji21JRspt4nqpkXPR5ea7deLzvmJtuzVBwdLJUpBqtgAZ5gHtHPbayD2jR3CWqjkJ.png

ধন্যবাদ সবাইকে



VOTE @bangla.witness as witness

witness_proxy_vote.png

OR

SET @rme as your proxy


witness_vote.png



WhatsApp Image 2021-12-23 at 19.46.54.jpeg



আমি কে?

IMG20210908180509.jpg

আমার নাম হায়দার ইমতিয়াজ উদ্দিন রাকিব। সবাই আমাকে ইমতিয়াজ নামেই চিনে। পেশায় আমি একজন ছাত্র। নিজেকে সবসময় সাধারণ মনে করি। অন্যের মতামতকে গুরুত্ব দেয় এবং তা মেনে চলার চেষ্টা করি। বাংলা ভাষায় নিজের অভিমত প্রকাশ করতে ভালো লাগে। তাছাড়া ফটোগ্রাফি,ব্লগিং,কুকিং,রিভিউ,ডাই ইত্যাদি করতে ভালো লাগে। অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়াতে ভালো লাগে। বাংলাদেশে জন্মগ্রহণ করতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করি। ভবিষ্যতে প্রিয় মাতৃভূমির জন্য কিছু করতে চাই।


Authors get paid when people like you upvote their post.
If you enjoyed what you read here, create your account today and start earning FREE STEEM!
Sort Order:  

Hello friend!
I'm @steem.history, who is steem witness.
Thank you for witnessvoting for me.
image.png
please click it!
image.png
(Go to https://steemit.com/~witnesses and type fbslo at the bottom of the page)

Upvoted! Thank you for supporting witness @jswit.

আর যাই হোক বাবুর জন্মদিনটা শুধু আপনাকে নয় আমাদের সকলকে আনন্দ দিয়েছে। একাকীত্ব থাকা বড়ই কঠিন, মন খারাপ থাকে।তবে তার মাঝে এমন সুন্দর আনন্দ আয়োজন পেলে মনটা খুবই আনন্দে ভরে যায়। গান কবিতা আর সুন্দর আয়োজন হ্যাংআউট আমাদের মনকে মাতিয়ে তুলছিল।

জি ভাইয়া একদম 🌼

আসলেই ভাইয়া টিনটিনের জন্মদিনটা অনেক বড় একটা আনন্দের বিষয় ছিল। একদম যাদের যাদের মন খারাপ তাদেরও মনটা ভালো হয়ে যাবে। আর আপনার যে এরকম পরিস্থিতিতে এত সুন্দর আনন্দ অনুভব হয়েছে এটাই ভীষণ ভালো লাগলো। কিছু কিছু সময় সত্যিই এই ধরনের আনন্দ গুলো অনেক বেশি উপকার হয়। বেশ ভালো লাগলো আপনার লেখাগুলো পড়ে।

জি আপু একা একা খুব খারাপ লাগতেছিল। টিনটিনের জন্মদিনে আমরা সবাই একসাথে উপভোগ করতে পেরেছি। 🌼

আপনার পুরো পোস্ট করে সত্যিই খুব ভালো লাগলো। আসলে আমাদেরও ভালো লেগেছে জন্মদিনের বিশেষ হ্যাংআউটে উপস্থিত থাকতে পেরে। আপনার অনুভূতি গুলো শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ।