শীতকালীন সুস্বাদু টিনে কাটা খেজুর গুড়ের ক্ষীর || ১০% @shy-fox এর জন্য

in hive-129948 •  4 months ago 

Picsart_22-01-12_15-47-29-119.jpg

আমার বাংলা ব্লগে আপনাকে স্বাগতম

প্রিয় বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন ? আশা করি মহান সৃষ্টিকর্তার অশেষ রহমতে আপনারা সবাই সুস্থ আছেন এবং নিরাপদে আছেন আমিও ভাল আছি। আমার পোষ্টের প্রথমেই আমি ধন্যবাদ দিতে চাই আমার বাংলা ব্লগের প্রতিষ্ঠিত আমাদের প্রিয় দাদা সহ আমার বাংলা ব্লগের সকল সুদক্ষ মডারেটরদের । যাদের অক্লান্ত এবং কঠোর পরিশ্রমের ফলে আজকে আমি এত সুন্দর একটি কমিউনিটি তে পোস্ট করতে পারছি। বন্ধুরা আজকে আমি আপনাদের মাঝে শেয়ার করব কিভাবে তৈরি করা যায় সুস্বাদু শীতকালীন টিনে কাটা খেজুর গুড়ের ক্ষীর রেসিপি। এই রেসিপিটি আমাদের গ্রাম অঞ্চলের খুবই জনপ্রিয় একটা রেসিপি কেননা এই রেসিপিতে খেজুরের ক্ষীর থেকে শুরু করে নারিকেল গরুর দুধ সহ নানান উপকরণ ব্যবহার করা হয় যার ফলে রেসিপিটি অনেক সুস্বাদু এবং মুখরোচর খাবার হয়ে ওঠে। শীতকালের পিঠা এবং ক্ষীর খেতে খুবই মজাদার এবং যারা মিষ্টান্ন খাবার ভালোবাসেন তাদের জন্য খুবই ভাল একটি রেসিপি হতে পারে এই টিনে কাটা ক্ষীর। আমরা সবাই জানি গ্রাম অঞ্চলে শীতকালীন সময়ে পিঠাপুলির এবং ক্ষীর তৈরি করার ধুম ওঠে এবং নতুন ধান ঘরে উঠাই কৃষকরা খুবই খুশি থাকে তাই এসব ক্ষীর শীতকালে বেশি তৈরি হয়। তবে চলুন বন্ধুরা দেখে আসা যাক কিভাবে তৈরি করা যায় সুস্বাদু শীতকালীন সুস্বাদু টিনে কাটা খেজুরের গুড়ের ক্ষীর রেসিপি।

# রেসিপিটি তৈরি করতে প্রয়োজনীয় উপাদান

ক্রমিক নম্বরউপাদানপরিমাণ
গরুর দুধ১ কেজি
চাউলের ময়দা৫০০ গ্রাম
গরম মসলাপরিমাণমতো
খেজুরের গুড়৪০০ গ্রাম
নারিকেল কুচিপরিমাণমতো
ফলপরিমানমত
লবণস্বাদ অনুযায়ী
চিনি৪০০ গ্রাম

image.png

ধাপঃ-১


IMG_20220112_114246.jpg

প্রথমে প্রয়োজনীয় মশলাপাতি গুলো প্রস্তুত করে নিব।
image.png

ধাপঃ-২


IMG_20220112_115257.jpg

এবার চাউলের ময়দা এবং পানি ভালোভাবে মিশিয়ে হাতের তালুর মাধ্যমে সেনে নিব।
image.png

ধাপঃ-৩



IMG_20220112_114147.jpg

এবার গরুর দুধ একটি পাত্রে আলাদা করে রেখে দিলাম।
image.png

ধাপঃ-৪


IMG_20220112_113704.jpg

এবার কড়াই এর ওপরে পরিমাণমতো পানি ভালোভাবে গরম করে নিতে হবে।
image.png

ধাপঃ-৫


IMG_20220112_120418.jpg

এবার করাইয়ের মধ্যে পরিমাণমতো মশলাপাতি এবং দুধ , নারিকেল একসঙ্গে দিয়ে দিতে হবে । এরপরে কড়াই এর উপরে টিন রাখতে হবে ।এবার প্রস্তুত করে নেওয়া চাউলের ময়দা এর উপরে দিয়ে সামান্য ঘষতে হবে যেমনটা ছবিতে দেখানো হয়েছে।

image.png

ধাপঃ-৬



IMG_20220112_114749.jpg

এবার কিছুক্ষণ ফুঁটিয়ে নেওয়ার পরে খেজুরের গুড় এর মধ্য দিয়ে দিতে হবে।
image.png

ধাপঃ-৭


IMG_20220112_121712.jpg

এবার মিশ্রনটিকে একসঙ্গে ভালোভাবে ফুটিয়ে নিতে হবে। তাহলেই তৈরি হয়ে যাবে সুস্বাদু টিনে কাটা খেজুরের গুড়ের ক্ষীর।
image.png

ধাপঃ-৮



IMG_20220112_141406.jpg

রেসিপির সঙ্গে আমার একটি ছবি।
image.png

🫂ধন্যবাদ!!!🤵


ফটোগ্রাফার@emonv
ফটোগ্রাফি ডিভাইসVIVO Y12 A

image.png

[[🔉‌‌প্রিয় স্টিমিট ইউজারগন,,]]👩‍💻"ইমন ব্লগ"👩‍💻 এর পক্ষ থেকে আপনাদের সবাইকে প্রাণঢালা শুভেচ্ছা। আমার নাম মোঃ ইমন রেজা। বর্তমানে আমি একজন মাধ্যমিক🏫 শিক্ষার্থী। আমি প্রায়শই নিজেকে আবিস্কার করি। কেননা এটা আমার কথায় এবং লিখাই নতুন স্বাদ যুক্ত করে, যার ফলে আমি নিজের সবথেকে ভালো টুকু আপনাদের মাঝে উপস্থাপন করতে পারি। আমি প্রতিদিন একবার নিজের সাথে কথা বলি, কারণ এটা আমার নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস আরো বাড়িয়ে দেয়। আমি ভ্রমণ করতে এবং ফটোগ্রাফি করতে অনেক পছন্দ করি। আমি প্রতিনিয়ত নতুন ,নতুন মানুষদের সাথে মিশে তাদের জীবনের অভিজ্ঞতার ভালোটুকু আমার জীবনে বাস্তবায়িত করতে পছন্দ করি।

image.png

image.png

qjrE4yyfw5pEPvDbJDzhdNXM7mjt1tbr2kM3X28F6SraZjhKfwarvyppgw9vqb9HZvwjHzdVYbXjNSwmxX8BvQtkJibkzjkMfqSg4GHwc6sRTpcDcvAvyxra.png

Authors get paid when people like you upvote their post.
If you enjoyed what you read here, create your account today and start earning FREE STEEM!
Sort Order:  

এই ক্ষীর আমার বেশ পছন্দের খাবার। এবং নতুন খেজুর গুড় দিয়ে এটা তৈরি করলে এর স্বাদ যেন বেড়ে যায়। ক্ষীরের রেসিপি টা বেশ ভালোভাবে দেখিয়েছেন। তবে আমাদের দিকে চাউল ব‍্যবহার করা হয় কিন্তু আপনারা দেখছি ময়দা ব‍্যবহার করেন।।

এই রেসিপিটি তে ময়দা ব্যবহার করলেও খেতে খুবই মজাদার হয়ে থাকে । আপনি একবার ট্রাই করে দেখতে পারেন অনেক মজা পাবেন ধন্যবাদ আপনাকে।

@tipu curate

I really liked your post, good job.

আপনি দারুন একটা রেসিপি আমাদের মাঝে নিয়ে এসেছেন টিনে কাটা খেজুরের গুড়ের ক্ষীর। সত্যিই এটা খুবই ভালো এবং শীতকালের গ্রাম বাংলার বড় আকর্ষণ। আপনি অনেক সুন্দর করে ধাপ গুলো দেখিয়েছেন এবং বিস্তারিত বর্ণনা করেছেন। আমাদের সাথে এত সুন্দর একটি রেসিপি পোস্ট শেয়ার করার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।

আপনি ঠিক কথা বলেছেন ভাই এটি গ্রাম বাংলার বড় একটি আকর্ষণ, গ্রাম অঞ্চলে এটি খুবই জনপ্রিয় একটা রেসিপি ধন্যবাদ আপনাকে।

এই রকম পিঠা আমি কখনো খাই নি।এই প্রথম দেখলাম।আপনি খুব সুন্দর করে ধাপে ধাপে দেখিয়েছেন। উপকরনগুলো দেখে মনে হচ্ছে মজাই হবে।ধন্যবাদ আপনাকে।

এটি খেতে খুবই মজাদার আপনি একবার ট্রাই করতে পারেন। ধন্যবাদ ভাই আপনাকে আপনার সুন্দর মতামতের জন্য।

বলতে হবে আপনি আজকে একটা ইউনিক রেসিপি শেয়ার করেছেন। এর সঙ্গে আমি সম্পুর্ন নতুন, নাম শুনেছি তবে কখনো খাওয়া হয়নি। দেখে বোঝা যাচ্ছে অনেক সুস্বাদু খেতে। অবশ্যই বাসায় একদিন তৈরি করব, আপনার ধাপগুলো দেখে অসংখ্য ধন্যবাদ আমাদের মাঝে শেয়ার করার জন্য। আর এই জন্যই আমি আমার ওয়ালে এটিকে রেখে দিলাম।

ধন্যবাদ ভাইয়া আপনি অনেক প্রশংসনীয় মন্তব্য করেছেন 🥰🥰। আপনার জন্য শুভকামনা রইল।

একদম নতুন একটি রেসিপি আপনি শেয়ার করেছেন টিনে কাটা খেজুরের গুড়ের ক্ষীর আমি কোনদিনও খাইনি ।এভাবে আটা দিয়ে আমরা সেমাই পিঠা বানিয়ে খেয়েছি কিন্তু এভাবে টিনে কেটে কখনো তৈরি করা হয়নি। খাবারটি দেখে মনে হচ্ছে অনেক মজা হয়েছে আমার তো দেখেই লোভ লেগে গেলো।ধন্যবাদ সুন্দর একটি রেসিপি শেয়ার করার জন্য।

আটা দিয়ে সেমাই পিঠা বানিয়ে আমিও খেয়েছি , ওই রেসিপিটি খেতে খুবই মজাদার হয়ে থাকে তবে শীতকালে এই রেসিপিটি খেতে মন্দ নয় আপনি একবার ট্রাই করতে পারেন।

এই রেসিপিটি একদম নতুন দেখলাম। আগে কখনো এই খাবারটি খাওয়া হয়নি। রান্নাটা দারুন হয়েছে। ধন্যবাদ আপনাকে নতুন একটি রেসিপি শেয়ার করার জন্য।

ধন্যবাদ আপনাকে আপনার মূল্যবান মতামতের জন্য।

শীতের সকালে খেজুরের গুড় দিয়ে এত সুন্দর খীর রান্না করেছন। সেটা খুব সুন্দর লাগছে। এটা খেতে দারুণ। সুস্বাদু জনক একটি রেসিপি সব মিলিয়ে চমৎকার। এবং ধাপগুলি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছন। এর জন অনেক অনেক ধন্যবাদ।

জি, ভাইয়া শীতের সকালে খেজুরের গুড়ের ক্ষীর একবার খেয়ে দেখতে পারেন খুবই মজাদার ধন্যবাদ আপনাকে।

রেসিপিটি আমার কাছে সম্পন্ন নতুন। তবে দেখে মনে হচ্ছে খুবই মজা হয়েছে কেননা এটি একদম ঘরোয়া পরিবেশে তৈরি করা হয়েছে। আর এই ধরনের গ্রামীণ ঐতিহ্যবাহী খাবার গুলো আমার কাছে খুবই ভালো লাগে। অসংখ্য ধন্যবাদ আপনাকে

জি ভাইয়া এটি গ্রাম অঞ্চলে অনেক ঐতিহ্যবাহী একটি রেসিপি এবং অনেক জনপ্রিয়, রেসিপিটি খেতে খুবই মজাদার হয়েছিল ।🥰ধন্যবাদ আপনাকে আপনার মূল্যবান মতামতের জন্য।

  • শীতকালীন সুস্বাদু টিনে কাটা খেজুর গুড়ের ক্ষীর আসলেই খুব সুস্বাদু হয়ে থাকে। এই বছর আমার এটি খাওয়া হয়নি। আপনার কাছে দেখে খুব খেতে ইচ্ছে করতেছে। খুবই অসাধারণ একটি ব্লগ শেয়ার করেছেন আপনি। শুভকামনা রইল আপনার জন্য।

এটি অনেক সুস্বাদু একটি খাবার আপনি একবার ট্রাই করতে পারেন খেয়ে খুব মজা পাবেন। আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ আপনার মূল্যবান মতামতের জন্য।

খেজুরের গুরের ক্ষীর আমার খুব ভালো লাগে।আপনি সুন্দর একটি রেসিপি শেয়ার করেছেন।প্রতিটি ধাপ সুন্দর করে বর্ণনা করেছেন।দেখে ভালো লাগ্ল।শুভ কামনা রইল আপনার জন্য।

টিনে কাটা খেজুরের গুড় নামটি শুনেই আপনার পোস্টটি ওপেন করলাম। এধরনের খাবার এখনো খাওয়া হয়নি। রান্নার প্রণালী অনেক সুন্দর ভাবে তুলে ধরেছেন। ধন্যবাদ আপনাকে।

অনেক ইউনিক একটা রেসিপি দেখতে পেলাম। আমার মনে হয় না আমি এর আগে এই রেসিপিটি দেখেছি। টিনে কাটা খেজুর গুড়ের ক্ষীর রেসিপি নামটি আমার কাছে একেবারে নতুন। অনেক ভালো লাগলো আপনার রেসিপিটি দেখে। উপস্থাপনা তো খুব সুন্দর করে করেছেন।

এই রেসিপিটি আমাদের গ্রাম অঞ্চলে অনেক জনপ্রিয় আপনি একবার ট্রাই করতে পারেন। ধন্যবাদ আপনাকে এমন সুন্দর একটি মতামতের জন্য।

সত্যিই অসাধারণ একটি রেসিপি। আসলেই রেসিপি সম্পর্কে আমি আগে কখনো শুনিনি বা দেখিনি। আপনার কাছে দেখে ভালো লাগতেছে। শীতকালে খেজুরগুড়ের যেকোনো কিছুই অনেক ভালো লাগে। আর আপনার রেসিপিটি অসাধারণ হয়েছে। ধন্যবাদ আপনাকে আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্য।

জি খেজুরের গুড়ের যেকোনো কিছু আমারও অনেক ভালো লাগে ধন্যবাদ আপনাকে এমন সুন্দর একটি মতামতের জন্য।

ক্ষীর নাম শুনলেই তো জিভে জল চলে আসে। এই খির দিয়ে পাটিসাপটা পুলি পিঠা তৈরি করলে আরো দারুন লাগে। খুব সুন্দর একটি জিনিস শেয়ার করেছেন যেটি বহুদিন দেখা হয় না। ধন্যবাদ।

ধন্যবাদ ভাইয়া আমার রেসিপি টা নিয়ে চমৎকার একটি মন্তব্য করেছেন আপনি। 🥰🥰

এই রেসিপিটি আমি আগে কখনো দেখি নি। দেখতে কিন্তু বেশ ভালো দেখাচ্ছে আর এই রেসিপিটি অনেক সুস্বাদু মনে হচ্ছে।গুড় আর চালের গুড়ো দিয়ে এভাবে সুন্দর ক্ষীর তৈরি করার রেসিপিটি দেখতেই ভালো লাগলো।

দারুণ একটি রেসেপি শেয়ার করেছেন। এটা দেখতে যেমন লোভনীয় খেতে নিশ্চয়ই তেমন সুস্বাদু হবে। আর আপনি এটা রান্না করার ধাপ গুলো খুবই সুন্দর ভাবে উপস্থাপন করেছেন। অসংখ্য ধন্যবাদ।

টিনে কাটা কথাটা বুঝতে পারিন।তবে খেজুর গুড় বুঝেছি। অসাধারণ একটি রেসিপি ছিল। সুন্দর।

এই ক্ষীর কতো যে খেয়েছি। আহ গরম গরম কি যে মজা লাগতো। আপনার টিনে কাটা খেজুরের ক্ষীর দেখে মনে পড়ে গেলো ভাই। নারিকেল দিলে স্বাদটা যেন আরও বেড়ে যায়। ধন্যবাদ ভাই আপনাকে আমাদের মাঝে শেয়ার করে নেয়ার জন্য।