দিদার শেখানো আমার হাতের ফেসা মাছের ঝোল

in hive-120823 •  2 months ago  (edited)

IMG_20220921_155015.jpg

(দিদার শেখান ফেসা মাছের ঝোল)

বন্ধুরা,

কেমন আছেন আপনারা সবাই? আশাকরি সকলে ভালো আছেন,এবং আপনাদের আজকের দিনটা সকলের খুব ভালো কেটেছে।

আজ সকালে ঘুম থেকে উঠে আমার দিদার কথা খুব মনে পরছিলো। আমার দিদাকে আমরা সবাই খুব ভালো বাসতাম। আমার দিদি ছোটবেলা থেকে দিদার কাছেই মানুষ। আমার মাসির ছেলে মেয়ে ও আমার মামার ছেলে মেয়ে আর আমরা তিন ভাই বোন দিদাকে খুব ভালো বাসতাম। আমার দিদার হাতের রান্না ভিষন ভালো। যেহেতু দিদারা আগে বাংলাদেশে থাকতেন তারপর এখানে চলে আসেন। আমার দিদার কাছ থেকে আমি অনেক রান্না শিখেছি ।

দিদার হাতের প্রতিটি রান্নাই আমার খুব প্রিয় ছিলো কিন্তু কিছু কিছু রান্না আমার কাছে অত্যন্ত প্রিয় ছিলো যেমন আমার দিদা ফেসা মাছের ঝোল বানাত সেটা ছিল আমার খুব প্রিয়। দিদা আজ নেই কিন্তু তার সেখান রান্না গুলো আমার কাছে রয়ে গেছে। তাই আজ ভাবলাম আমিও একটু ফেসা মাছের ঝোল বানাই দিদার মতন করে। তাই বাজার থেকে আজকে ফেসা মাছ আনালাম।সেটা আমি রান্না করলাম। আসুন তাহলে যেনে নেওয়া যাক কি ভাবে এটি তৈরি করলাম।

উপকরন:-

1)ফেসা মাছ-৫০০ গ্রাম

2)আলু-২টো লম্বা লম্বা করে কাটা

3)পেয়াজ বাটা-২চা চামচ

4)আদা বাটা-১চা চামচ

5)জিরে বাটা-১চা চামচ

6)কাঁচালঙ্কা বাটা-১চা চামচ

7)হলুদ-১চা চামচ

8)নুন-স্বাদ মত

9)চিনি-স্বাদ মত

10)সরষের তেল-পরিমান মত

পদ্ধতি:-

1)প্রথমে মাছগুলো একটা পাত্রে নিয়ে ভালো করে ধুয়ে নিতে হবে।

IMG_20220924_160013.jpg

(মাছ গুলো ভালো করে ধোয়া)

2)তারপর মাছগুলো ভালোকরে নুন, হলুদ মাখিয়ে ১০ মিনিট রেখে দিন ।

IMG_20220924_234743.jpg

(মাছে নুন হলুদ মাখানো)

3)কড়াইটি গ্যাসে মাঝারি আঁচে বসিয়ে দিন।

4)কড়াই গরম হয়ে গেলে তার মধ্যে তেল দিয়ে দিতে হবে।

5)তেলটি গরম হলে মাছগুলো এক এক করে ভেজে নিয়ে একটা পাত্রে নাময়ে রাখুন।

IMG_20220921_155201.jpg

(ভাজা মাছ)

6)তারপর ঔ তেলে আলুগুলো ভেজেনিয়ে অন্য একটি পাত্রে নামিয়ে রাখুন।

7)আলুভাজা হয়ে গেলে যে অবশিষ্ট তেলটি থাকবে তারমধ্যে আরেকটু তেল দিয়ে একে একে পেয়াজ বাটা,আদাবাটা, জিরেবাটা, লঙ্কাবাটা দিয়ে একটু নেড়ে চেড়ে নিতে হবে।

8)এরপর তারমধ্যে নুন, হলুদ ও একটু চিনি দিয়ে শেটা ভালোকরে ৫মিনিট কষাতে হবে।দেখবেন যখন মশলা থেকে হালকা তেল বেরিয়ে গেছে।

IMG_20220924_234911.jpg

(মশলা কষানো)

9)তখন ভাববেন মশলাটা ভালোকরে কষেগেছে তারপর তার মধ্যে আলু গুলো দিয়ে একটু নেড়ে চেড়ে নিতে হবে।

10)এবার তারমধ্যে পরিমান মত গরম জল দিয়ে মাছ গুলো দিয়ে দিন। তারপর সেটা কিছুক্ষণ ঢেকে রাখুন।

IMG_20220924_234847.jpg

(গরম জল দেওয়ার পর)

11)কিছুক্ষণ বাদে ঢাকনাটা তুলে দেখবেন আলুগুলো সেদ্ধ হয়ে গেছে তারপর সেটা একটি পাত্রে নামিয়ে পরিবেশন করুন।

আজ এখানেই শেষ করলাম আমার রান্না। সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন।

শুভরাএি.

Authors get paid when people like you upvote their post.
If you enjoyed what you read here, create your account today and start earning FREE STEEM!
Sort Order:  
Loading...

এই রান্নাটা আমি খেয়েছি, কাজেই চোখ বন্ধ করে বলতে পারি জাস্ট ফাটাফাটি, আমার অসুস্থতার সময় আপনি এটি আমার জন্য র্ণানা করে এনেছিলেন।

এই মাছে খুব কাঁটা আছে তাই আমার মেয়ে খেতে চায় না, কারণ তার নাকি কাঁটা বাঁচতে সময় লাগে এবং সেটা সে ভালো পারে না, এটা আমার গিন্নির কথা তাই আমি আনি না এই মাছ বাড়িতে।